সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন

ঈশ্বরদী-রূপপুরের উন্নয়ন কাজ পরিদর্শনে অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী

অনলাইন ডেস্ক / ৯৪ শেয়ার
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১

পাবনা (ঈশ্বরদী): রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্মাণ কাজের মালামাল আনা-নেয়ার জন্য নতুন ঈশ্বরদী-রূপপুর পর্যন্ত বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের রাজশাহীর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আসাদূল হক।

বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত পাবনার ঈশ্বরদী থেকে রূপপুর পারমানবিক প্রকল্পের কাছে পাকশি হার্ডিঞ্জ ব্রিজ সংলগ্ন নতুন আধুনিক ষ্টেশনসহ রেল টার্মিনাল মোটর-ট্রলিতে ঘুরে পরিদর্শন করেন।

এছাড়াও সকালে, শত বছরের পুরোনো ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনে প্ল্যাটফর্ম উচুকরণ, যাত্রীসেবার মান বৃদ্ধির জন্য আধুনিক টয়লেট, যাত্রীদের বসবার বিশ্রামাগার, আধুনিক ইয়ার্ড, সিগন্যাল ভবনসহ নানামুখী উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করেন।

পাকশি বিভাগীয় রেলওয়ে দফতরের সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের জুন মাসে ৩৩৫ কোটি টাকা ব্যায়ে কাজ শুরু হয়। ঈশ্বরদী থেকে রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে বিভিন্ন মালামাল সহজে আনা-নেয়ার জন্য নতুন লাইনসহ নতুন স্টেশন,এবং ঈশ্বরদী জংশন ষ্টেশনে উন্নয়ন কাজের ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৩৫ কোটি টাকা। ১৬টি পুরাতন লাইন এবং নতুন লাইনের নতুন স্লিপার বসানোসহ ২৬ কি: মি: রেল লাইনের কাজ ৯৫ শতাংশ শেষ হয়েছে। আগামী ৩ মাসের ভেতর সম্পুন্ন কাজ শেষ হবে।

নির্মাণ কাজটি যৌথভাবে করছে দুটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ক্যাসেল কনস্ট্রাকশন লিমিটেড ও অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড ইঞ্জিনিয়ার লিমিটেড।

পরিদর্শনকালে আরও উপস্থিত ছিলেন,পাকশি বিভাগীয় রেলওয়ের প্রকৌশলী-২ আব্দুর রহিম, বিভাগীয়, সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী শিপন আলী,ঊদ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (কার্য) তৌহিদ সুমন, (পথ) বিএম বাকিয়াত-উল্লাহ, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প প্রকৌশলী, মোহাম্মদ আলম, আশরাফুল আলম সহ কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক আসাদূল হক বাংলানিউজকে জানান, বর্তমান রেলবান্ধব সরকারের আমলে এই প্রকল্পটি গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রকল্প। চট্রগ্রাম বন্দর থেকে সহজেই রূপপুর বিদ্যুৎ প্রকল্পে সহজে মালপত্র আনা-নেওয়ার জন্য হার্ডিঞ্জ ব্রিজ সংলগ্ন নতুন স্টেশনসহ নতুন রেললাইন স্থাপন করা হচ্ছে। যাত্রীসেবার মান বাড়াতে একই সঙ্গে ঈশ্বরদী রেল স্টেশনকে আধুনিক করার কাজটি ইতোমধ্যে শেষ।

প্রকল্প পরিচালক আরও জানান, ২০১৮ সালের জুন মাসে শুরু করা নির্মাণ কাজ চলতি বছরের জুন মাসে শেষ হওয়ার কথা ছিলো। করোনার জন্য পিছিয়ে গেছে কাজের অগ্রগতি। আগামী ৩ মাসের মধ্যে সম্পুন্ন কাজ শেষ হবে। এছাড়াও আগামী মাসে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের ঊদ্ধতন কর্মকর্তারা প্রকল্প পরিদর্শন করবেন। সময় তারিখ নির্ধারণ হয়নি। পরিদর্শন শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে ট্রেন চলাচলের দিনক্ষণ নির্ধারণ করা হবে বলে জানান ওই রেলওয়ে কর্মকর্তা।


এই বিভাগের আরও খবর
ব্রেকিং নিউজ
x
ব্রেকিং নিউজ
x