সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৭:৩৩ অপরাহ্ন

পাবিপ্রবিতে এক বছর পূর্বের তারিখে ফরম পুরনের বিজ্ঞপ্তি

অনলাইন ডেস্ক / ৫২ শেয়ার
প্রকাশ : বুধবার, ১৬ জুন, ২০২১

জেলা প্রতিনিধি, পাবনা: পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে গভীর রাতে পরীক্ষায় আয়োজন করে নোটিশ দেওয়ার একদিন পর এবার এক বছর পূর্বের তারিখে ফরম পুরনের সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আবারো তুমুল সমালোচনার ঝড় বইছে।
 পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পাবিপ্রবি) একাডেমিক ও স্কলারশিপ শাখার সহকারী রেজিষ্ট্রার মো: সুজা উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৪-২০১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের স্পেশাল পরীক্ষা-২০১৮ এর ফরম পুরনের তারিখ ১৪-০৬-২০২১ থেকে ২৮-০৬-২০২০ পর্যন্ত নির্ধারণ করেছেন।
পাবিপ্রবি’র রেজিষ্ট্রারের কার্যালয়ের একাডেমিক ও স্কলারশিপ শাখার বিজ্ঞপ্তি সূত্রে জানা গেছে, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাডে গত ১৩ জুন, ২০২১ ইং তারিখে একটি বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, ওই বিভাগের ২০১৪-২০১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের স্পেশাল পরীক্ষা-২০১৮ এর ফরম পুরনের তারিখ ১৪-০৬-২০২১ থেকে ২৮-০৬-২০২০ পর্যন্ত নির্ধারণ করা হলো। সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীবৃন্দ পরীক্ষায় অংশগ্রহনের আবেদন ফরম স্ব বিভাগ থেকে সংগ্রহ করে যথাযথভাবে পুরণ করে হল ক্লিলিয়ারেন্স গ্রহণ পূর্বক স্ব ২৮ জুন জমা দিবেন। বিভাগ পুরনকৃত ফরম রেজিষ্ট্রার দপ্তরের একাডেমিক শাখায় ২৮-০৬-২০২১ তারিখের মধ্যে প্রেরণ করবে।
বিজ্ঞপ্তি প্রাপ্তির পর পরই ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ফেসবুক পেজ “পাবিপ্রবি ক্যম্পাস আমাদের ক্যম্পাস” এ শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন মন্তব্য করে পোষ্ট দিতে থাকেন। কিছুক্ষণের মধ্যে শুরু হয় শিক্ষার্থীদের নানা ধরনের মন্তব্য।
তন্মোধ্যে সুইট মন্ডল নামের এক শিক্ষার্থী লিখেছেন, আর কবে এসব বিষয়ে সচেতন হবে, মানুষ ভুল হতে শিক্ষা নেয়। সেদিনের এএম, পিএম নিয়ে কত বড় নিউজ হয়ে গেল, অথচ আবার ভুল। এখন মনে হয় এরা বার বার ভুল করেই মিডিয়ায় আসতে চায়। এগুলো দেখলে এখন সত্যিই খুব খারাপ লাগে।
অপর এক শিক্ষার্থী লিখেছেন, এদের চাকুরী টা দিছে কে? এরা মনে হয় শুকনো কিছু খেয়ে লিখেছেন।
অপর একজন লিখেছেন, প্রচুর ট্রলের শিকার হচ্ছি ভাই, বিভিন্ন ভার্সিটির বন্ধুরা মেনশন দিয়ে ট্রল করছেন। এ ধরনের বিভিন্ন শিক্ষার্থী বিভিন্ন ধরনের মন্তব্য করছেন। ২০২০ সাল তো করোনায় চলে গেছে, কিভাবে আমরা ফিরে পাব ওই তারিখ?
বিষয়টি নিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, পাবিপ্রবি ক্যম্পাসে কি খেলা চলছে, আমরা জানতে চাই। কারা কিভাবে নিয়োগ পাচ্ছেন সেটাও ওপেন সিক্রেট। এর থেকে পরিত্রান পাওয়া দরকার বিশ্ববিদ্যালয়টির। সবাই লুটপাটে ব্যস্ত, কোন প্রকার জবাবদিহিতা নেই। নতুন বিশ্ববিদ্যালয় অথচ উন্নতির চিন্তা কারোর মাঝেই নেই। যে যেখানে আছেন সেখান থেকেই আখের গোছাতে ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন। এর থেকে পরিত্রান পাওয়া দরকার বলেও মন্তব্য করেন তারা।
বিষয়টি নিয়ে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পাবিপ্রবি) একাডেমিক ও স্কলারশিপ শাখার সহকারী রেজিষ্ট্রার মো: সুজা উদ্দিনের মুঠোফোনে কয়েকবার চেষ্ট করেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।
 তবে পাবিপ্রবি রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ের একজন উর্দ্ধতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, হয়ত এটি টাইপিংয়ে ভুল হয়েছে। তবে বিশ্ববিদ্যালয় লেভেলে এ ধরনের ভুল কখনোই গ্রহনযোগ্য হতে পারে না। প্রায়ই এ ধরনের ভুল হয়ে যাচ্ছে, কেউ কোন পদক্ষেপ গ্রহন না করার কারনেই এ ধরনের ঘটনা বার বার ঘটছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যদি শক্ত অবস্থানে থেকে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতেন, হয়তো আর হতো না। এটি আমাদেরই ব্যর্থতা বলেও স্বীকার করেন তিনি।
প্রসঙ্গত, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ গভীর রাতে অনলাইনে ক্লাশ নিয়ে সারা দেশে জন্ম দেওয়া বিতর্কের রেশ না কাটতেই পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গভীর রাতে পরীক্ষা নেওয়ার নোটিশ দেওয়ায় বিষয়টি তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়। ঠিক ওই ঘটনার একদিন পরেই আবারো বিজ্ঞপ্তিতে এক বছর পিছনের তারিখ দিয়ে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হলো।
এই বিজ্ঞপ্তিটি ছাত্রছাত্রীদের কাছে যাওয়া মাত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিরূপ প্রতিক্রিয়া ও সমালোচনার ঝড় ওঠে।


এই বিভাগের আরও খবর
ব্রেকিং নিউজ
x
ব্রেকিং নিউজ
x