শিরোনাম
যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে গুলিতে নিহত ৬ বাংলাদেশীর দাফন সম্পন্ন ফরিদপুর পৌরসভার মেয়র কামরুজ্জামান মাজেদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ সেই মুন্নীর পাশে সুজানগর উপজেলা ছাত্রদলের আন্তরিক অবস্থান পাবনায় ২০৫ পিচ অবৈধ নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার চাটমোহরে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ পাবনা ফ্রেন্ডস অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি রিয়াদ হোসেন বাবুর জন্মদিন মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় দ্বিতীয় তানভিন আহমেদ ঈশ্বরদীতে করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ প্রয়োগ শুরু আটঘরিয়ায় বিআরডিবি’র নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ঈশ্বরদী-আটঘড়িয়ার সাবেক এমপি আব্দুল বারী সরদার আর নেই
শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১, ০৫:১৪ অপরাহ্ন

পাবনার একমাত্র নারী মুক্তিযোদ্ধা ভানু নেছা মারা গেছেন

অনলাইন ডেস্ক / ১৪৮ শেয়ার
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

জেলা প্রতিনিধি, পাবনা: পাবনার তালিকাভুক্ত একমাত্র নারী মুক্তিযোদ্ধা ভানু নেছা( ৮১) মৃত্যুবরণ করেছেন। ইন্নালিল্লাহী ও ইন্না ইলাইহি রাজিউন।
শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১) দুপুর সোয়া ২ টায় সাঁথিয়ার নন্দনপুর তেথুঁলিয়া গ্রামের নিজ বাসভবনে ইহকাল ত্যাগ করেন।

সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম.জামাল আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গত দেড় বছর আগে স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। নিজের কুঁড়ে ঘরে বসবাস করতেন অর্থাভাবে ঠিকতম মায়ের সুচিকিৎসা করাতে পারেনি সন্তানরা।

 

স্থানীয় সূত্র জানায়, সাঁথিয়ায় সম্মুখযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন ভানু নেছা। গোলা-বারুদ মাথায় করে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে পৌঁছে দিতেন তিনি। গুলি লেগে আহত হয়েছিলেন। ১৯৯৬ সালে পাবনায় ও ঢাকায় সরকারি-বেসরকারিভাবে তাকে সম্মানিত করা হয়।

সাঁথিয়ার নন্দনপুর ইউনিয়নের তেথুঁলিয়া গ্রামের বাসিন্দা ভানু নেছার স্বামী আব্দুল প্রামাণিক মারা যান কয়েক বছর আগে। ভানু নেছার দুই ছেলে দিনমজুরের কাজ করেন। মায়ের সরকারি ভাতা এবং নিজেদের সামান্য আয়ে কোনমতে চলত তাদের সংসার।

ভানু নেছার ছেলে ইউনুস আলী জানান, বিগত দেড় বছর যাবত ধরে মা বিছানা থেকে উঠতে পারতেন না। কোলে করে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় নিতে হত। পক্ষাঘাতগ্রস্ত হওয়ায় ইশারায় কথা বলতেন। ছয় থেকে ৭ মাস ঠিকমতো খেতে পারতেন না। তাই মা আমাদের এতিম করে চলে গেল, বড়ই কষ্ট পাচ্ছি।

সাঁথিয়া উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আব্দুল লতিফ জানান, একাত্তরে নন্দনপুরে যখন পাক বাহিনীর সাথে যুদ্ধ শুরু হয়, তখন আমরা বাঙ্কারে ছিলাম। এই ভানু নেছা তখন আমাদের অনেকভাবে সহযোগিতা করেছিলেন। তিনি কোমরে বেঁধে থানা থেকে গোলাবারুদ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সরবরাহ করেছিলেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস এম জামাল আহমেদ বলেন “আমি তার অসুস্থতা থাকাকালীন সময়ে খোঁজ-খবর নিয়েছি। বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছি। তার মৃত্যুর খবর খুবই বেদনাদায়ক। কারণ তার মৃত্যুতে পাবনাবাসী একমাত্র নারী মুক্তিযোকে হারাল। তার মৃত্যুতে আমরা শোক প্রকাশ করছি।

তার মৃত্যুতে পাবনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে, সামাজিক, রাজনৈতিক, জনপ্রতিনিধিরা শোক জ্ঞাপন করেছেন।

 


এই বিভাগের আরও খবর
ব্রেকিং নিউজ
x
ব্রেকিং নিউজ
x