শিশুরা মোবাইল ফোন ও অতিরিক্ত গেমস খেলায় আসক্ত

প্রকাশিত: ৪:৫৩ অপরাহ্ণ , সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০

আল এহসান হক মাসুক ঃ

ছবিটির মধ্যে কিছু ছোট ছেলে মেয়েদের দেখা যাচ্ছে তার লাফা লাফি করে পুুকুরে গোসল করছে। প্রকৃতির ডাকে সারা দিয়ে মনের তৃপ্তি দুর করতে পুকুরে লাপ দিয়ে গোসল করে খুব আনান্দ পাচ্ছে এই শিশুরা। তারা এভাবেই প্রতিনিয়ত আমাদের চোখের সামনে সুন্দরভাবে হেসে , খেলে , দৌড়ে , ঝাপিয়ে বেড়িয়ে আনান্দঘন পরিবেশের মধ্যে বেড়ে উঠছে। কারন তারা শিশু তারা সব সময় চায় ভাবনাহীনভাবে হেসে খেলে দিন পার করতে। প্রতিটি মানুষই এই শিশুদের মতো ছেলেবেলায় ঠিক এমনি ভাবে সারাদিন খেলাধুলা , গাছে উঠে বন্ধুদের সাথে ফল চুরি করে খাওয়া , পুকুরে সবাই মিলে লাপ দিয়ে গোসল করা , আবার বিকেলে সবাই মিলে মাঠে ক্রিকেট ফুটবল খেলা। এই শিশুদের প্রতিনিয়ত ছুটে চলার মধ্যে দিয়ে ধীরে ধীরে তারা ছোট থেকে বড় হচ্ছে হাস্যউজ্জল ভাবে। অনেক সময় এ সব কাজের জন্য বাড়িতে বাবা , মা পরিবারের বড়দের কাছ থেকে রাগারাগী মার খেতে হয়। কিন্তু তারপরও তাদের ছুটে চলা যেন থেমে নেই কারণ তারা তো শিশু তাদের বয়সটাই এসব আনান্দ মধ্যে নিজেকে রাখা। তারা যদি এ বয়সে এরকম রোদ , বৃষ্টি , দৌড়ে ঝাপিয়ে, খেলাধুলা থেকে বিরত থাকে তাহলে তারা একজন সুস্থ সবল মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে পারবেনা। একদিন এসব শিশুরাই বড় হবে এবং আগামী দিনের বাংলাদেশের ভবিষৎ পজন্ম হিসেবে গড়ে উঠবে। এই শিশুগুলো এখন যতো এ সকল পরিবেশের সাথে মানিয়ে নিয়ে চলবে ততোই তাদের জ্ঞান বুদ্ধিতে পরিপূর্ণ হয়ে শারিরীক ও মানষিকভাবে তারা বেড়ে উঠবে । তাই এ সকল শিশুদের দৈনদিন জীবনে বিভিন্ন বিনোদন মূলক পরিবেশের ব্যবস্থা আমাদেরকে করতে হবে।

বর্তমানে দেশের প্রতিটা জেলা , গ্রাম , শহর , বাজার , পাড়া কিংবা মহল্লায় খেলার মাঠ বিভিন্ন ছোট খাটো পুকুর , খাল বিল ও ছোট খাটো বিনোদন পার্ক ভরাট করে তৈরি হচ্ছে বড় বড় স্থাপনা যার কারণে এ শিশুগুলো প্রকৃতি হতে প্রাপ্ত ভালোবাসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে অনেক ছেলে মেয়ে ছোট বেলা থেকেই দৃষ্টিশক্তি হারাচ্ছে , মস্তিস্ক জনিত সমস্যা ভুগছে , শারিরীক বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছে। বর্তমান যুগে তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে এসব শিশু ছেলে মেয়েরা মোবাইল ফোন , কম্পিউটার , ইন্টারনেট সহ তথ্য প্রযুক্তির দিকে বেশি ঝুগছে বিনোদনের কোন পরিবেশ না পেয়ে। আর এতে তাদের জ্ঞান বুদ্ধি , মন মানিসকতা , শারিরীক গঠন অনেক অংশেই সুন্দর ভাবে গঠিত হওয়া থেকে ব্যহত হচ্ছে। তারা অতিরিক্ত সময় মোবাইল ফোন , কম্পিউটার ব্যবহার , কিংবা গেমস খেলার মধ্যে দিয়ে পার করছে। এতে তারা নিজেদের ক্ষতি করছে না বুঝে সেই সাথে সামনে একটি উজ্জল ভবিষৎ হারাচ্ছে। পড়াশুনায় ঠিকমত মন বসাতে পারছেনা এসকল শিশুদের বাবা , মারা ।

তারা তাদের ছেলে মেয়েদের ভবিষৎ নিয়ে সব সময় চিন্তার মধ্যে থাকছে। এসব শিশুদের ভষিৎ সুন্দর করার লক্ষে এ সকল শিশুদের এখন থেকেই শুধু বাড়ির মধ্যে ধরে না রেখে বাহিরের জগতটার সাথে পরিচয় করে দিতে হবে তাদেরকে। তাহলে তাদের মানসিক বিকাশে পাশাপাশি তারা শারিরীক ভাবে একজন সুস্থ সবল মানুষ হিসেবে সমাজের মাঝে নিজেকে গড়ে তুলতে পারবে। তাই তাদের জন্য প্রয়োজনীয় খেলাধুলার মাঠ , বিভিন্ন বিনোদনমুলক পার্ক বেশি বেশি গড়ে তুলতে হবে যেখানে তারা হেসে খেলে , দৌড় ঝাপ দিয়ে , খেলাধুলা করে সুন্দরভাবে গড়ে উঠবে একজন সুস্থসবল প্রতিভাবমান ব্যাক্তি হিসেবে। তাহলেই আমাদের আগামী দিনের ভষিৎ সেজে উঠবে আরো সুন্দরভাবে। তাই এখনই সময় আমাদের এই ভবিষৎ প্রজন্মকে সুন্দর পরিবেশের মধ্যে দিয়ে গড়ে তোলা।